Monday

Latest Bengali Books | তবুও ভালোবাসি

SHARE


Latest Bengali Books | তবুও ভালোবাসি

Latest Bengali Books | তবুও ভালোবাসি


#নাম : তবুও ভালোবাসি#লেখক: নিশাত ইসলাম#প্রকাশনী: : অনন্যা#পৃষ্ঠা সংখ্যা : 127



প্রিভিউ ;
-অধ্যায় ইন্টার পর্যন্ত ভালোই করছিল। মেডিক্যাল হলো না,বুয়েট হলো না,শেষ পর্যন্ত ঠাঁই মিললো ইডেনে। মন ভেঙ্গে গেছে তখনই। মা-বাবা মাঝে মাঝে এ নিয়ে কথা শোনায় ।।
-অর্ণব বিজনেজ- এ অনার্স মাষ্টার করেছে একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে।এখনো বাবার ব্যবসায় বসেনি।বাবাই সব চালিয়ে নিচ্ছে।একমাত্র ছেলে তাই ফ্যামিলি থেকে তেমন কোনো প্রেশার নেই। অনেক মেয়ের সাথে বন্ধুত্ব হয়েছে ওর।তবে সেভাবে ভালো লাগেনি কাউকে।তাইতো প্রেম হয়ে উঠেনি।অধ্যায়কে হঠাৎ করেই ভালো লাগতে শুরু করেছে। তাই ওর পিছনে ছোটা।
-রেহমানকে মনে মনে ভালোবাসে ও। কিন্তু বলা হয়নি কখনো।ফেসবুকে ওদের সব জানা-শোনা,কথা বার্তা। চ্যাট করতে করতে রেহমান ওকে নানা ভাবে ভালোবাসার কথা বুঝিয়েছে।কিন্তু ও না বোঝার ভান করে হেসে উড়িয়ে দিয়েছে।
- বন্ধুত্ব বহুদিনের হলেও প্রেম প্রায় ছ'মাস।
-ওর জীবনটা সিনেমার গল্পের মত হোক তা ও চায় না। তাই এখনই একটি পদক্ষেপ নেওয়া দরকার,হোক সেটা যতই কঠিন।
-তবুও ওকে এই কাজ টা করতে হবে।তা না হলে ওর জীবনটা নষ্ট হয়ে যেতে পারে।মন সে তো নষ্ট হয়েই আছে।।
-দুপুরে মায়ের মোবাইলে এসএমএস পাঠিয়ে দিলো অধ্যায়।
-মা আমাকে ক্ষমা করো। আমি একটা ছেলেকে ভালোবাসি। তাকে বিয়ে করে ফেলেছি ।আমি আর বাসায় ফিরবো না
-কয়েক মাস কাটতেই রেহমানের অনেক পরিবর্তন ধরা পড়লো অধ্যায়ের চোখে।তার মিথ্যে বলা,অভিনয় সবই স্পষ্ট । বিয়ে করবে কি-না বলে মনে যে সন্দেহ ছিল তা পুরোটাই সত্যি।
-তুমি কি এখনো বুঝতে পারছো না যে, তুমি আমাকেই ভালোবাসতে।
-জানি না
যদি ভালো নাই বাসতে তবে এতো রাতে কেনো আমাকে হাসপাতালে দেখতে এলে। আমার কপালে চুমু খেলে। যেদিন আমার আব্বা আম্মা মারা গেল সেদিন কেনো আমার হাতে হাত রাখলে।
-জানি না এসব আমি কেনো করেছি।
তুমি আমাকে ভালোবাস।
-আমি রেহমানকে ভালোবাসতাম।
না তুমি আমাকে ভালোবাসতে। রেহমানের চাল চলন, কথা বার্তা তোমাকে মুগ্ধ করতো তাই ভালোবাসা আর ভালোলাগাকে তুমি আলাদা করতে পারোনি। একবার ভেবে দেখো । দেখবে তুমি আমাকেই ভালোবাস।
-প্রতিদিন দুইবার ও সিরিঞ্জ নিতো, সেই দুইবার যখন বেড়া উঠে তখন অর্ণবের খুব কষ্ট হয়।ওর নেশাগ্রস্থ শরীরটা নিজের বুকে লুকিয়ে রাখতে ওর দম বন্ধ হয়ে আসে। ভেবে কিছু মেলাতে পারে না,ও কেনো নেশাগ্রস্থ ।
বিকাল হতেই অধ্যায়কে নিয়ে বের হয়ে গেলো। আজ ওকে নিয়ে নিরিবিলি একটা জায়গায় যাবে। গাড়ি ছুটে চলছে। অধ্যায় নিজেকে গুটিয়ে বলল,
বাইরে এত কোলাহলল এতো আলো ভালো লাগে না। আমি বদ্ধ ঘরে থাকতে চাই।প্লিজ ফিরে চলুন।
অর্ণব গাড়ির গতি আরো বাড়িয়ে দিলো।
- হ্যাঁ আমি অর্ণব চৌধুরী।অধ্যায় আমার কাছে আছে।ও আমার ভালোবাসা ছিল। ভুল করে ও বিষ খেয়েছিল।আমি সে বিষ বের করে ওকে বাঁচাবো।
সব জেনে শুনে ?
শোন রেহমান। তোমার মন নষ্ট। তাই সবাইকে তুমি তেমন ভাবো। ভালোবাসা কি তা তুমি জানো না।যে প্রেম করে সে কোন কিছু দেখে শুনে করে না। আমি অধ্যায়কে ভালোবাসি। ওর দেহ, যৌবন, সৌন্দর্য কে নয়।
রেহমান কেঁদে ফেললো।
আপনি কতো মহান আর আমি কতো ছোট আর নীচ।
-অর্ণব মুখ চেপে বলল,
কোনো কথা নয়। আমি সব জানি।আমার চোখের দিকে তাকিয়ে বলো,আমাকে ভালোবাসো না?
অধ্যায় তাকিয়ে বলল,
বাসি।কিন্তু ওই ভয়ঙ্কর অতীত?
ওটা দুঃস্বপ্ন।আমরা সবাই দেখি।
সানাইয়ের সুর বেজে উঠল। বধু সেজে অধ্যায় অর্ণবের পাশে।
সত্যিকার ভালোবাসা মানুষকে কোনো দিন দূরে ঠেলে দেয় না।  



#পাঠ_প্রতিক্রিয়া ঃ বইটা আমার কাছে খুব ভালো লেগেছে। বাস্তব জীবনের সাথে মিল রেখেই গল্প টা তৈরি। আসলে সত্যিকার ভালোবাসার মানুষ গুলা এমনি হয়   ।।
SHARE

Author: verified_user