Sunday

বদরুল খাদিজাকে কুপিয়েছিলো। আমরা কিন্তু বদরুলকে ভুলিনি, এখনো কথায় কথায় বদরুলের কথা বলি। কিন্তু যে ছেলেটা বদরুলকে ধরতে সাহায্য করেছিলো,তাকে আমরা কয়জন মনে রেখেছি?

SHARE

বদরুল খাদিজাকে কুপিয়েছিলো। আমরা কিন্তু বদরুলকে ভুলিনি, এখনো কথায় কথায় বদরুলের কথা বলি। কিন্তু যে ছেলেটা বদরুলকে ধরতে সাহায্য করেছিলো,তাকে আমরা কয়জন মনে রেখেছি?

Sad Man Photo

অবহেলিত পুরুষ 


এক পুরুষ ধর্ষণ করে,আর শত পুরুষ সেই ধর্ষণের প্রতিবাদ করে।
কিন্তু পত্রিকা,নানারকম নিউজ পোর্টাল সহ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলায় ধর্ষককেই হাইলাইটস করে।মানুষের মুখেমুখেও চলে রগরগে আলোচনা।যার কারনে সমাজের মানুষগুলার মনে একটা ধারণা তৈরি হয় আসলে পুরুষ জাতটাই ধর্ষকের জাত।
কেন ভাই!ধর্ষককে হাইলাইটস করার সাথে সাথে যেসব পুরুষ ধর্ষণের প্রতিবাদ করে তাদেরও মাঝেমাঝে হাইলাইটস করা যায়না?তাহলেই তো মন্দের সাথে ভালোর ধারণাটাও টিকে থাকে।
উদাহরণ স্বরুপ বদরুলের কথা বলা যায়।বদরুল খাদিজাকে কুপিয়েছিলো।কেন কুপিয়েছিলো সেদিকে নাহয় না গেলাম।আমরা কিন্তু বদরুলকে ভুলিনি।এখনো কথায় কথায় বদরুলের কথা বলি।
কিন্তু যে ছেলেটা বদরুলকে ধরতে সাহায্য করেছিলো,তাকে আমরা কয়জন মনে রেখেছি?
রাখিনি...
আমরা ছোটবেলা থেকেই পড়ে আসছি,পুরুষরা ধর্ষণ করে,পুরুষরা নারী নির্যাতন করে,পুরুষরা এসিড মারে।যার কারণে পুরুষের সম্পর্কে আমাদের মনে একটা খারাপ ধারণা তৈরি হয়।বিশেষ করে মেয়েদের। কিন্তু সব পুরুষই কি এমন??সব পুরুষ তো এমন নয়ই,ইনফ্যাক্ট বেশিরভাগ পুরুষই এমন নয়।তাহলে সবসময় পুরুষকে এমন নেগেটিভ চরিত্রে উপস্থাপন করা হয় কেন?পুরুষরা কি শুধু নারীর শরীর খুবলে ফেলতে চায়?নিরাপত্তা দেয়না?
আজকাল তো অনেক মেয়েকেই দেখি বিয়ে করতে চায়না।তাদের চোখে পুরুষ নাকি খারাপ,তাদের সাথে জীবন কাটানো যায়না।
তাদের তো দোষও দেয়া যায়না।কারণ তাদের চোখে পুরুষের খারাপ রুপটাই শুধু ধরা পরেছে।
পতিতা নিয়ে অনেক গল্প লেখা হয় আজকাল।প্রায় গল্পেই পতিতাকে একটা পজেটিভ চরিত্রে দেখানো হয়।গল্পে দেখানো হয় মেয়েটা জীবনের নানা ঘাত প্রতিঘাত পেরিয়ে এই পথে নামতে বাধ্য হয়েছে।যেখানে তার একজন পুরুষ খদ্দেরকে নেগেটিভ চরিত্রে উপস্থাপন করা হয়।
কেন..?
পুরুষ খদ্দেরটাকে পজেটিভ চরিত্রে উপস্থাপন করা যায়না?গল্পে দেখানো যায়না যে ছেলেটাও পরিস্থিতির স্বীকার হয়ে পতিতার কাছে যেতে বাধ্য হয়েছে? অথবা পুরুষটি পতিতাটির সাথে দেহ সঙ্গম করতে যায় না, শুধু মাত্র মানুষ হিসেবে, একজন বন্ধু/শুভাখাঙ্কী হিসেবে তার সাথে আড্ডা দিতে যায়, তার খোঁজ নিতে যায়, নাকি এমন হয়ই না?
আমাদের সমস্যাই এইটা।আমরা খারাপটা বেশি প্রচার করি।এই দেশে ভালো মানুষের অভাব নাই।আমরা তাদেরকে তুলে ধরার চেষ্টা করিনা।মানুষের মনে পজেটিভ ধারণাটা আসবে কোথা থেকে?
এক পুরুষ ধর্ষণ করলে যদি শত পুরুষ প্রতিবাদ করে,তাহলে পুরুষ ধর্ষকের জাত কিভাবে হয়? আপনি নারী মানেই মা জাত মানেন,কিন্তু স্বেচ্ছায় হওয়া বেশ্যাদের আলাদা করে ঘৃণার চোখে দেখেন, তাহলে শুধু ধর্ষণকারীকেই খারাপ ভাবেন,প্লিজ!
পুরুষরাই প্যাডম্যান সিনেমা করে,পুরুষরাই ইভ টিজিং সিনেমা করে,পুরুষরাই নারী নির্যাতনের প্রতিবাদ করে,পুরুষরাই নারীর অধিকার নিয়ে লেখে। বেগম রোকেয়া থেকে যদি বাংলার নারী জাগরণের ইতিহাস ধরেন, তাহলে এটাও মানা লাগবে, উনার এই জাগরণের পেছনে পুরুষ হিসেবে সাখাওয়াত সাহেবের অবদানও কম ছিলো না।
কই আমিতো দেখিনি কোন নারীকে এভাবে পুরুষদের নিয়ে ভাবতে!বা কোন ব্যার্থ পুরুষের সফল হয়ে ওঠা গল্পগুলোতে কোন নারীর বলিষ্ঠ ভূমিকা সচরাচর চোখে পরে কি?
কয়দিন আগে যে জামালপুরের এক ছেলেকে এসিড মেরে দিল এক মেয়ে,কই দেখলামনা তো কোন মেয়েকে এটা নিয়ে প্রতিবাদ করতে।
তাহলে সহানুভূতিটা আসবে কোথা থেকে?
যাইহোক,পুরুষকে ধর্ষক বলা যাবেনা।
ধর্ষককেই ধর্ষক বলতে হবে।
সে নারী হোক বা পুরুষ (জ্বী ঠিক পড়েছেন, পুরুষরাও ধর্ষিত হয়,বাংলাদেশে নিয়মিত না হলেও বহিঃর্বিশ্বে অহরহ হয়)।
যদি কেউ ধর্ষণ করে তাহলে সে তার নিজের অস্তিত্বকে কলঙ্কিত করে, পুরো সম্প্রদায়কে না।
একজন পুরুষ বাপ হয়,ভাই হয়,স্বামী হয়,বন্ধু হয়,প্রেমিক হয়।সে ধর্ষক কেন হবে?
আসল পুরুষ কখনোই ধর্ষণ করেনা।
আমাদের মানসিকতায়ও পরিবর্তন আনা দরকার।
একটা ছেলে একটা মেয়ের দিকে তাকিয়েছে মানে এই নয় তার দৃষ্টিতে লিপ্সা ছিলো।হতে পারে তার দৃষ্টিতে ভালোবাসা ছিলো।
একটা ছেলে একটা মেয়ের শরীরের ঊন্মুক্ত অংশের দিকে তাকিয়েছে মানে এই নয় সে মেয়েটার শরীর উপভোগ করছে।
হতে পারে সে আসলে মেয়েটাকে বলার চেষ্টা করছিলো,"এই মেয়ে!তোমার শরীর দেখা যাচ্ছে।প্লীজ ঢেকে নাও"।
একটা মেয়ের মনে প্লিজ শুরুতেই ঢুকিয়ে দেবেন না যে সব পুরুষই খারাপ।তাতে মানুষ হিসেবেও প্রাপ্য সম্মানটুকুও কোন পুরুষ পাবে না তার কাছ থেকে।


পুরুষধর্ষকনয়
লেখা-সুমন্ত হাসনাইন
SHARE

Author: verified_user