Wednesday

কিভাবে খুব অল্প সময়ে ইউটিউব চ্যানেলের ৪০০০ ঘন্টা ওয়াচটাইম করবেন

SHARE

                               কিভাবে খুব অল্প সময়ে ইউটিউব চ্যানেলের ৪০০০ ঘন্টা ওয়াচটাইম করবেন


How To Increase Youtube Channel Watch Time


আস্সালামু আলাইকুম, 

আমরা যারা ইউটিউবে কন্টেন্ট ক্রিয়েটার আছি তারা সকলেই জানি ইউটিউবের নতুন নিয়ম অনুযায়ী এডসেন্স পেতে হলে অবশ্যই নির্ধারিত চ্যানেলের শেষ ১২ মাসের মধ্যে ৪০০০ ঘন্টা ওয়াচটাইম এবং ১০০০ সাবস্ক্রাইবার লাগবে নতুবা মোনিটাইজ অন করা যাবেনা।



যারা আগে থেকেই মোটামুটি বড় চ্যানেলে আছে তাদের জন্য এটা কোন মেজর ফেক্ট না। কিন্তু সমস্যা বাধবে নতুনদের জন্য।
একটি 0 সাবস্ক্রাইবার এর চ্যানেল থেকে প্রথম বছরেই ৪০০০ ঘন্টা ওয়াচটাইম অর্জন করা অনেক কঠিন বিষয়।
আজকে এই কঠিন বিষয়কে কিভাবে সহজ বিষয়ে পরিণত করা যায় তাই নিয়েই কথা বলবো।


                                          Sign In To Youtube Channel



বাড়তি কথা না বলে সরাসরি চলে যাচ্ছে মূল পয়েন্টে।

তো আপনি ইউটিউব চ্যানেল মোনিটাইজ করে ইনকাম করতে চাচ্ছেন।তারমানে এখানে আপনি খেলা করতে আসেননি। সিরিয়াসলি ডলার ইনকাম করতে আসছেন।
তাহলে ধরে নিচ্ছি আপনি সিরিয়াস।
চলুন একটা নতুন চ্যানেল ক্রিয়েট করি এবং সেটাকে ৪০০০ ঘন্টা ওয়াচটাইম এবং ১০০০ সাবস্ক্রাইবার তৈরি করি।
আমাদের নতুন চ্যানেলের নাম

                                                                  "
Channel X "    
Bangla Tutorial About Youtube Channel


আমাদের চ্যানেলটির নিশ টেকনোলজি। সেটা হতে পারে টিপ্স কিংবা রিভিউ।

আমাদের মনে রাখতে হবে প্রথম চ্যালেঞ্জ হচ্ছে 12 মাসের মধ্যে ৪০০০ ঘন্টা ওয়াচটাইম অর্জন করা।
আমরা যেদিন চ্যানেলটি খুলবো সেদিন একই নিশ কিংবা মাল্টি নিশের একটি ফেসবুক গ্রুপও খুলবো।
মনে রাখবেন পেজে লাইক বাড়ানো কঠিন হলেও গ্রুপে মেম্বার বাড়ানো কিন্তু সহজ!! 
আমরা প্রতিদিন এই গ্রুপে সর্বমোট 2 ঘন্টা সময় ব্যয় করবো মেম্বার বাড়ানো এবং পোস্ট শিডিউল করতে।
প্রথম প্রথম আমাদেরকেই গ্রুপে পোস্ট কমেন্ট করে গ্রুপটাকে চাঙ্গা করতে হবে।
আপনি চাইলে ফেক আইডি ব্যবহার করে সহজেই অল্পদিনে 5000 ফ্রেন্ড করতে পারবেন এবং গ্রুপে এড করে দিতে পারেন।
ইউটিউবে প্রচুর ভিডিও আছে কিভাবে গ্রুপে মেম্বার বাড়ানো যায় সে বিষয়ে।
তো গ্রুপ তো হলো।

এবার আমাদের চ্যানেলের জন্য 10 টা ভিডিও বানাবো ভাইরাল টপিকের ভিডিও।

ফানি কম্পাইলেশন টা সহজ, 
চাইলে মাথা খাটিয়ে অন্য টপিকও বের করতে পারেন।
যেমন ধরেন সারাবিশ্বেই UFO নিয়ে মানুষের আগ্রহ অনেক।
যদি আমেরিকার ইউটিউব এরিয়ায় সাতরানোর এক্সপেরিয়েন্স থাকে তাহলে দেখে থাকবেন
বছরের নানা সময় ক্যালিফোর্নিয়া / মেক্সিকো/ টেক্সাসে UFO দেখা গেছে এসব ভিডিও খুবব অল্প সময়ে ভাইরাল হয়ে যায়।
কেননা মানুষ মাত্রই অজানাকে জানতে চাই। রহস্যপ্রিয়।


আপনার নিশ যায় হোক, আপনি এডসেন্স পেতে চান আর সেজন্য প্রথম কাজ হচ্ছে ৪০০০ ঘন্টা ওয়াচটাইম।



তাই প্রথমে 10 টা ভাইরাল টপিকের উপর ভিডিও বানান।

ভিডিওর উপর যথেস্ট মন দিন কেননা ভিডিও ভালো না হলে ট্রাফিক এসে ভিউ বাড়াবে কিন্তু ওয়াচটাইম তেমন বাড়বে না কেননা ট্রাফিক ফুল ভিডিও না দেখেই চলে যাবে।
ধরে নিলাম আপনার ভিডিও ভালো হয়েছে, এবার টার্গেট হচ্ছে ভাইরাল করা।
অনেকেই আছে ফেসবুকে কমেন্টে কমেন্টে লিংক দিয়ে স্প্যাম করে।

ভুলেও একাজ করবেন না। আইডিও যাবে চ্যানেলের এসইওতেও নেগেটিভ প্রভাব পড়বে।

ভালো ভিডিও + রহস্যময়ী আইকেচি থাম্বনেইল দিছেন , এখন সেটাকে বড় থাম্বনেল সহকারে আপনার নিজের গ্রুপ + আরো বড় 4 টা গ্রুপে পোস্ট করেন। মনে রাখবেন গ্রুপে পোস্ট করার আগে থেকে অবশ্যই সেসব গ্রুপে নরমাল পোস্ট কমেন্ট করবেন।
প্রথমদিন যেসব ভিজিটর গ্রুপ থেকে ভিডিও দেখতে আসবে তাদের কেউ কেউ সাব করবে কেউ কেউ করবেনা।
যেহেতু ভিডিও আপলোডের প্রথম দিনেই অনেকগুলো ভিউ পাচ্ছেন গ্রুপ থেকে সেহেতু ইউটিউব বোট ভিডিওটাকে অন্যদের কাছে সাজেস্ট করবে দেখার জন্য। এখান থেকেও বেশ কিছু ওয়াচটাইম পাচ্ছেন।
তারপরের দিন কি করবেন??




না নতুন ভিডিও দিবেন না, তবে তৈরি করতে থাকুন মন দিয়ে।

আর ঐ যে গ্রুপের জন্য 2 ঘন্টা??
গতকাল যেসব গ্রুপে পোস্ট করছিলেন সেসব গ্রুপে ঐ পোস্টের নিচে যারা কমেন্ট করছে তাদের রিপ্লে দিন।
চেস্টা করবেন রাত ৮ টা থেকে ১০ টার মধ্যে দিতে, এসময় ফেসবুকে এক্টিভ ইউজার বেশি থাকে।
আপনি যখনই কমেন্টে রিপ্লে দিতে থাকবেন তখনই গতকালের পোস্ট আজকে আবার গ্রুপের টপে চলে আসবে ফলে যেসব মেম্বার গতকাল পোস্ট টি দেখে নি তারাও আজকে দেখবে। এতে করে নতুন লিংক পোস্ট না করেই একই গ্রুপ একই পোস্ট থেকে নতুন ভিজিটর পাবেন।

অনেক গ্রুপ দেখবেন যেখানে প্রকি পোস্টে কয়েক হাজার লাইক, কমেন্ট থাকে।

ভাবুন যদি একটা পোস্ট আপনি ভাইরাল করতে পারেন তাহলে সেটাই যথেস্ট কয়েক লাখ ভিউ আনতে।
আর যেহেতু ভিডিও রহস্যময়ী সেহেকু ভিজিটর স্বভাবই রহস্যভেদ করতে ফুল ভিডিও দেখবে।একদিনে নরমালি যদি 1000 হাজার ভিজিটর আসে এবং তারমধ্যে 500 ভিজিটর ফুল ভিডিও দেখে তাহলে গড় হিসেবে প্রতি ভিডিও যদি 5 মিনিট হয় তাহলে একদিনে মোট ওয়াচটাইম হবে
 500× 5 = 2500 মিনিট।
প্রতিদিন 2500+ মিনিট।
এখন বলুন 4000 ঘন্টা করতে কি 12 মাস লাগবে নাকি মাত্র 2/3 মাসেই পসিবল??
আমি বলি সর্বোচ্চ 3/4 মাস লাগবে 4000 ঘন্টা ওয়াচটাইম করতে।
আর 4000 ঘন্টা ওয়াচটাইম হলে অটোমেটিক 1000 সাবস্ক্রাইবার হবে।
আসলে 1000 না তারচেয়ে বেশি সাবস্ক্রাইবার হবে।
যখন 4000 ঘন্টা ওয়াচটাইম + 1000 সাবস্ক্রাইবার হবে তখন আপনি আপনার নিশের ভিডিও আপলোড করতে শুরু করেন।
অনেকেই বলতে পারেন পুরাতন সাবস্ক্রাইবার রা নতুন নিশের ভিডিও কেনো দেখবে?
দেখেন যে রহস্য পছন্দ করে, UFO পছন্দ করে কিংবা সায়িন্স পছন্দ করে সে কম্পিউটার টিপ্স/ নতুন গেজেট/ মোবাইল / ইন্টারনেটের টুকিটাকি পছন্দ করেনা এটা কে বললো?
আপনি তো মুভিও দেখেন আবার গানও শুনেন সাথে টেকনোলজির খবরও রাখেন।
বোনাস হিসেবে ট্রাম্প কি বললো মেসি কয়টা গোল করলো কোথায় প্লেন হাইজাক হলো সেগুলোর খবরও দেখেন।
তাই না।

তাছাড়া আমাদের প্রথম টার্গেট হলো 4000 ঘন্টা ওয়াচটাইম পূর্ন করে এডসেন্স নিয়ে চ্যানেল মোনিটাইজ করা

তো সেই টার্গেট পূরন হলে এবার আপনার নিশ নিয়ে আপনার পদ্ধতি দিয়ে চলতে থাকুন।

সফল হবেন ইনশাআল্লাহ।
SHARE

Author: verified_user