Thursday

এন্ড্রোয়েড মোবাইল দিয়েই প্রতিদিন আয় করুন 500 - 1000 টাকা।

SHARE

                        এন্ড্রোয়েড মোবাইল দিয়েই প্রতিদিন আয় করুন 500 - 1000 টাকা।

মোবাইলে টাকা আয়ের সহজ উপায়


মোবাইলে টাকা আয়ের সহজ উপায়



আর সেটা যদি হয় ঘরে বসে তাও এন্ড্রোয়েড মোবাইলের মাধ্যমে তাহলে তো কথায় নেই।
এইরকম অতি সহজে টাকা ইনকামের কথা বলে অনেক ভূয়া মোবাইল এপ্স ভিত্তিক প্রতিষ্ঠান সাধারনের লাখ লাখ টাকা মেরে দিয়ে উধাও হয়ে গেছে।
ফলে এখন আর সাধারন মানুষ এগুলো বিশ্বাস করতে চাই না।
তবে শত অবিশ্বাসের মাঝেও 2/1 টা বিশ্বাস থাকে।
আজকে সেরকম ই কিছু বিশ্বস্ত সোর্স নিয়ে কথা বলবো যার মাধ্যমে আপনারা মোবাইল দিয়েই টাকা ইনকাম করতে পারবেন। ইন্টারনেটে টাকা আয় করার উপায় 2018
কথা না বাড়িয়ে চলুন যায় আসল কথায়!


টাকা ইনকাম Apps

এক নম্বরেই যেই এপটির কথা বলবো সেটির নাম হলো Whaff এপ।


এটি সারাবিশ্বেই বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে এবং বিশ্বাসও অর্জন করতে পেরেছে।
Whaff এপটির মাধ্যমে ইনকাম করতে হলে প্রথমে আপনাকে একটি একাউন্ট খুলতে হবে। একাউন্ট খুলতে ফেসবুক আইডি দিয়ে লগিন করুন।
আমি কোন রেফারেল আইডি দিচ্ছি না কেননা আমি শুধুমাত্র ব্লগিং নিয়েই থাকি 
যায় হোক, একাউন্ট খোলা হয়ে গেলে আপনাকে যা করতে হবে তা হলো প্রতিদিন ওরা নির্দিস্ট কিছু টাস্ক দিবে সেগুলো পূর্ন করা। টাস্ক গুলো মোবাইল দিয়েই করা যায়।
যেমন ধরেন গেম ডাউনলোড / এপ রিভিউ / কোন গেম খেলা কিংবা ভিডিও দেখা ইত্যাদি।
তাছাড়া প্রতিদিন Whaff এপটিতে প্রবেশ করার জন্যও কিছু পয়েন্ট পাবেন।
এটির মাধ্যমে আয় বাড়াতে হলে আপনাকে অবশ্যই রেফারেল বাড়াতে হবে। আপনার রেফারেলে যত মেম্বার জয়েন করবে আপনার ইনকাম তত বাড়বে।

তো ইনকাম তো হলো কিন্তু টাকা তুলবো কিভাবে??

Whaff থেকে টাকা তোলা খুবই সহজ।
Paypal/ Payza এর মাধ্যমেই টাকা তুলতে পারবেন।
আবার চাইলে প্লে স্টোর থেকে পেইড এপও কিনতে পারবেন।
এটাও টাকা ইনকামের আরেক সুযোগ।
ধরুন আপনি একটি 2 ডলারের পেইড ভিডিও এডিটিং এপ কিনলেন।
এখন অনেকেই ইউটিউবের জন্য ভালো ভিডিও এডিটর চাই।
তো 2 ডলার দিয়ে কেনা এপটি আপনি 5 জনের কাছে 200 টাকা করে বিক্রি করলেও 1000 টাকা সহজেই পকেটে চলে আসছে।

-


যেখানে এপটি কিনেছেন মাত্র 160/180 টাকা দিয়ে।
Lol যদিও পদ্ধতিটি সুবিধার না তবুও চেস্টা করে দেখতে পারেন।
ইউটিউবারদের এপের সমস্যাও সমাধান হবে আপনার টাকাও জমা হবে।


মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকামের দ্বিতীয় সোর্স 


মোবাইল দিয়ে টাকা ইনকামের দ্বিতীয় সোর্স  হিসেবে আমি ফটোগ্রাফি কে সিলেক্ট করবো।


এমন লোক খুবই কম পাওয়া যাবে যে ছবি তুলতে পছন্দ করেনা।
আর সবার হাতে স্মার্টফোন আসার পর ছবি তোলা এখন পান্তাভাত হয়ে গেছে।
এখন ধরে নিচ্ছি আপনি ছবি তুলেই টাকা ইনকাম করতে চান।
তো শুরু করা যাক ...
সাটারস্টোকে একটি একাউন্ট খুলুন, আপনার বেস্ট বেস্ট কিছু ছবি সেখানে আপ দিন। কেউ যদি সেসব ছবি কিনে তাহলে আপনার একাউন্টে টাকা চলে আসবে।
তবে মনে রাখবেন আম জাম কাঠালপাতার ছবি দিয়ে টাকা কামানোর চিন্তা থাকলে ঝরে পড়বেন।
দেখুন সাটারস্টোক থেকে কারা ছবি কিনে?? যারা প্রোফেশনাল, যাদের ঐ ছবি গুলো তাদের নিজ নিজ প্রোফেশনে ব্যবহার করতে পারবে তারাই কিনে।
এজন্য সবচেয়ে ভালো হয় প্রোডাক্ট ফটোগ্রাফি করলে।
ধরুন ইয়ার ফোন। সেটাকেই নানা এঙ্গেল থেকে ভালো মানের কিছু ছবি তুলুন। বেছে বেছে বেস্ট ছবিটা আপ দিন।
সাটারস্টোকে একাউন্ট খুলতে সমস্যা হচ্ছে?
চিন্তার কিছু নেই।
ইন্টারনেটে টাকা আয় করার উপায়
একটি ফ্রি ব্লগ খুলুন। ভালো দেখে ফটোগ্রাফি নিশের থিম পছন্দ করুন।
ছবি আপ দিতে থাকেন। ভালো করে অপ্টিমাইজ করে সাইটটিকে রেংক করান।
সেখান থেকে কেউ ছবি কিনতে চাইলে আপনার সাথে যোগাযোগ করবে।
ব্যস 1/2 লেনদেন!!



মোবাইল দিয়ে টাকা আয়


500 টাকা দিয়ে মিনি স্টুডিও কিনতে পাওয়া যায়। কিনে নিন।
বিভিন্ন প্রোডাক্টের উপর 1 0/15 সেকেন্ডের ছোট ছোট ভিডিও বানান।
গুগলে সার্চ করে দেখুন প্রচুর সাইট পাবেন যারা ভিডিও কিনে এবং সেল করে।
সেসব সাইটের কোন একটায় একাউন্ট খুলে ভিডিও আপ দিন।
ধীরে ধীরে ভিডিও উপরে আসবে সেলও আসতে শুরু করবে।
চতুর্থ নাম্বারে ইউটিউবিং।
আগে ইউটিউবিং কেই এক নাম্বারে রাখতাম কিন্তু নতুন আপডেটের পর মোবাইল ইউটিউবিং অনেকটাই কঠিন হয়ে গেছে।
তবুও চাইলে আমার এই আর্টিকেলটি পড়তে পারেন কিভাবে সহজে 4000 ঘন্টা ওয়াচ টাইম করা যায় সেটার উপর বিস্তারিত কথা বলেছি।
বর্তমানে মোবাইল দিয়েই ভালো মানের ভিডিও + এডিটিং করা যায়।
আবার থাম্বনেলের জন্য Pixlab তো আছেই।
আগে যেখানে এসব এডিটিং পিসি ছাড়া কল্পনায় করা যেতো না তা এখন নরমাল এন্ড্রোয়েড দিয়েই করা যায়।
তো বসে থাকবেন কেন? লেগে যান এখনি... 
আমার পরবর্তী পোস্টে চেস্টা করবো মোবাইল দিয়ে ইউটিউবিং করার জন্য যেসব এপসের দরকার হয় তা নিয়ে কথা বলতে।
অপেক্ষা করুন... শীঘ্রই আসছে




SHARE

Author: verified_user